Previous
Next

সর্বশেষ

Thursday, 17 September 2020

অবশেষে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের কথা স্বীকার করলো মিয়ানমার

অবশেষে রাখাইনে রোহিঙ্গাদের ওপর নির্যাতনের কথা স্বীকার করলো মিয়ানমার

শুরু থেকে নির্যাতন বা গণহত্যার কথা অস্বীকার করলেও এবার নতুন করে এ ঘটনার বিস্তারিত তদন্ত শুরু করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। 

মঙ্গলবার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমে এক বিবৃতিতে একথা জানানো হয়।

২০১৭ সালে মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীর অভিযান থেকে প্রাণে বাঁচতে পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নেয় ৭ লাখের বেশি রোহিঙ্গা। সেখানে গণহত্যা, ধর্ষণ, ঘরবাড়িতে আগুন দেয়ার ভয়াবহতার বর্ণনা জানা যায় পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে।

শুরু থেকেই জাতিসংঘসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় এই ঘটনাকে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে গণহত্যা বলে বর্ণনা করলেও বরাবরই এ অভিযোগ অস্বীকার করেছে মিয়ানমার সেনাবাহিনী।

 


রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে বৈধ অভিযান চালানো হয়েছে দাবি করে তাদের বক্তব্য, কিছু গ্রামে অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডের দায়ে কয়েকজন সেনা সদস্যকে কোর্ট মার্শাল করা হয়েছে।

তবে এবার রোহিঙ্গাদের ওপর সম্ভাব্য নির্যাতনের কথা স্বীকার করলো মিয়ানমার। দেশটির সেনাবাহিনী বলছে, ২০১৬ এবং ২০১৭ সালের ওইসব নির্যাতনের ঘটনা তদন্ত করা হচ্ছে। মঙ্গলবার তাদের বিবৃতিতে বলা হয়, সরকার গঠিত কমিশনের একটি প্রতিবেদন পর্যালোচনা করা হচ্ছে।

ওই প্রতিবেদনে মিয়ানমার সেনাদের যুদ্ধাপরাধের জন্য অভিযুক্ত করা হয়েছিল। তারই পরিপ্রেক্ষিতে সহিংসতার তদন্তের ক্ষেত্র আরো প্রসারিত করা হচ্ছে। তদন্তের আওতায় মংডু এলাকার গ্রামগুলোতে নির্যাতনের অভিযোগও খতিয়ে দেখা হবে।

এ বছর জানুয়ারিতে রাখাইনে সেনা অভিযানের সময় রোহিঙ্গা মুসলিমদের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধ সংগঠিত হওয়ার প্রমাণ পায় মিয়ানমার সরকারের একটি তদন্ত প্যানেলও। তারাও সেখানে গণহত্যার কোনো প্রমাণ পায়নি বলে জানানো হয়।

এদিকে গত সপ্তাহেই ওই অভিযানে রোহিঙ্গা হত্যার বিষয়ে দুই সেনার স্বীকারোক্তির ভিডিও প্রকাশ করে মানবাধিকার সংগঠন ফরটিফাই রাইটস।

ভিডিওতে তারা জানান, মিয়ানমার সেনাবাহিনীর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের নির্দেশেই রাখাইনে জাতিগত নিধন অভিযান চালানো হয়। সেনাদের প্রতি নির্দেশ ছিল, রোহিঙ্গা দেখা মাত্রই গুলি করার। উচ্চ পদস্থদের এমন আদেশেই নির্বিচারে হত্যা, গণহত্যা, ধর্ষণ, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ চালানো হয়।

Tuesday, 15 September 2020

কি ভাবে হাত ধোতে হয় শেখাবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, খরচ ৪০ কোটি টাকা!

কি ভাবে হাত ধোতে হয় শেখাবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল, খরচ ৪০ কোটি টাকা!

 গরীব মানুষকে হাত ধোয়া শেখাবে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, তাতে খরচ হবে ৪০ কোটি টাকা। আবার পাঁচ বছরে মাত্র ৯ জনের বেতন ভাতা ৩ কোটি টাকা, আছে বিদেশ ভ্রমণ, সেখানেও লাগবে ৫ কোটি টাকা। এমনই হরিলুটের আয়োজন ‘গ্রামীণ পানি সরবরাহ, স্যানিটেশন এবং স্বাস্থ্যবিধি’ প্রকল্পের ডিপিপি'তে। প্রকল্পের ১ হাজার ৮৮৩ কোটি টাকার প্রায় পুরোটাই অর্থায়ন করবে বিশ্বব্যাংক। অর্থনীতিবিদরা বলছেন, এমন অনিয়মে শুধু আর্থিক নয়, ক্ষতি হয় সুনামেরও। পরিকল্পনামন্ত্রী মনে করেন, প্রচলিত আইনি কাঠামোর ফাঁক গলেই রক্ষা পেয়ে যাচ্ছে অনিয়মে অভিযুক্তরা।



দেশের বাজারে ভালো মানের হাত ধোয়ার একটি বেসিনের সর্বোচ্চ মূল্য ৬ হাজার থেকে ১২ হাজার টাকা, পানির পাম্পসহ যার সর্বোচ্চ খরচ ৩৫ হাজার টাকা। অথচ পাঁচ ইঞ্চি ইটের গাঁথুনিতে সাড়ে তিন ফুট লম্বা একটি স্টেশন তৈরিতে ২ লাখ টাকারও বেশি অর্থের প্রস্তাব করেছে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর। পানির পাম্পসহ এরকম ১ হাজার ৪২৫টি স্টেশন তৈরির খরচ সাড়ে ২৮ কোটি টাকা। ডিপিপিতে আচরণ পরিবর্তন আর হাত ধোয়া শেখাতে চাওয়া হয়েছে প্রায় ৪০ কোটি টাকা। পরামর্শকদের পেছনে ২৭ কোটি টাকা, আবার নিজেদের সক্ষমতা বাড়াতে অধিদপ্তর ব্যয় করবে ৭ কোটি টাকা
আগামীকাল ১৭ সেপ্টেম্বর  থেকে কাতার রুটে বিমানের নিয়মিত ফ্লাইট চালু হচ্ছে।

আগামীকাল ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে কাতার রুটে বিমানের নিয়মিত ফ্লাইট চালু হচ্ছে।

 আগামীকাল থেকে কাতার রুটে বিমানের নিয়মিত ফ্লাইট চালু হচ্ছে।


করোনার কারণে দীর্ঘ বিরতির পর আবার শুরু হচ্ছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের নিয়মিত দোহা-ঢাকা-দোহা রুটে ফ্লাইট চলাচল।

আগামীকাল ১৭ সেপ্টেম্বর থেকে কাতারের দোহা রুটে পুনরায় ফ্লাইট পরিচালনা করবে বাংলাদেশ বিমান।


কাতারস্থ বিমানের কান্ট্রি ম্যানেজার রেজাউল আহসান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি জানান, সপ্তাহে বৃহস্পতিবার ও সোমবার দোহা-ঢাকা দুটি ফ্লাইট পরিচালিত হবে।

কাতার থেকে বাংলাদেশে যেতে ইচ্ছুক প্রবাসীদের বিস্তারিত তথ্যের জন্য বিমানের ওয়েবসাইট এবং কাতার বিমান অফিস বিক্রয় কাউন্টার ৪৪৪৩৩১১৭ নম্বরে ফোন অথবা নিকটস্থ ট্রাভেল এজেন্সিতে যোগাযোগ করতে হবে।

খিচুড়ি রান্নার জন্য বিদেশে প্রশিক্ষণ,সচিব কি বললেন

খিচুড়ি রান্নার জন্য বিদেশে প্রশিক্ষণ,সচিব কি বললেন

স্কুল শিক্ষার্থীদের জন্য সবজি বা ডিম খিচুড়ি রান্না করা ও সরবরাহের কাজে প্রশিক্ষণ নিতে বিদেশ যাচ্ছেন বেশ কিছু কর্মকর্তা। প্রাথমিক বিদ্যালয়ে স্কুল ফিডিং কার্যক্রমের আওতায় এসব কর্মকর্তারা বিদেশ সফর করবেন বলে বিভিন্ন গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জ্যেষ্ঠ সচিব আকরাম-আল-হোসেন বলেছেন, খিচুড়ি রান্না প্রশিক্ষণের জন্য নয়, অন্যান্য দেশ স্কুলে মিড ডে মিল (দুপুরের খাবার) কীভাবে বাস্তবায়ন করে, সেক্ষেত্রে অভিজ্ঞতা অর্জনে বিদেশে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা রাখা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে এসব কথা বলেন জ্যেষ্ঠ সচিব। তবে এক্ষেত্রে মোট প্রকল্পের অতি অল্প অর্থ ব্যয় ধরা হয়েছে। এ অর্থ ব্যয় কোনো অপচয় নয় বরং অভিজ্ঞতা অর্জনে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থাটা রাখা হয়েছে বলেও এ সময় দাবি করেন তিনি।

আকরাম-আল-হোসেন বলেন, এ প্রকল্পের কোনো অর্থ এখনো ছাড়া হয়নি। পরিকল্পনা কমিশন কিছু জিজ্ঞাসা পাঠিয়েছে। তার জবাব পাঠানো হবে। এরপর একনেকে চূড়ান্ত অনুমোদন হবে।

তিনি বলেন, স্কুল ফিডিং প্রকল্প ১০৪টি উপজেলায় চালু ছিল যা ডিসেম্বরে শেষ হচ্ছে। আগামী বছর থেকে সারাদেশে নির্বাচনী ইস্তেহারমতে সব স্কুলগুলোতে দুপুরের খাবার দেয়া হবে। এটা বাস্তবায়ন সঠিকভাবে করার জন্য ভারতসহ যেসব দেশ মিড ডে মিল চালু করেছে, সেসব দেশ থেকে অভিজ্ঞা অর্জনের জন্য এক হাজার কর্মকর্তার এ প্রশিক্ষণের কম্পোনেন্টা রাখা হয়েছে।

এর আগে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের (ডিপিই) স্কুল ফিডিং কার্যক্রমের প্রকল্প পরিচালক মো. রুহুল আমিন গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, এশিয়ার বিভিন্ন দেশের প্রাথমিক বিদ্যালয় কীভাবে খিচুড়ি রান্না করা হয়, এর পরিবেশ ও পরিবেশন দেখতে এই প্রকল্পের আওতায় বেশ কিছু কর্মকর্তা বিদেশ সফর করবেন। কবে কতজন বিদেশ সফর করবেন সে বিষয়টি এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

এদিন তিনি আরও বলেছিলেন, বিদেশ ভ্রমণের মাধ্যমে কীভাবে খিচুড়ি রান্না করতে হয় এবং তা শিক্ষার্থীদের মাঝে বিতরণ করা হয় সে বিষয়ে তারা ধারণা নিতে পারবেন। এই কর্মসূচির আওতায় সারাদেশে শিক্ষার্থীদের মাঝে রান্না করা খাবার বিতরণ করা হবে।



Monday, 14 September 2020

শ্রীলঙ্কার শর্ত মেনে টেস্ট সিরিজ সম্ভব নয়: বিসিবি সভাপতি

শ্রীলঙ্কার শর্ত মেনে টেস্ট সিরিজ সম্ভব নয়: বিসিবি সভাপতি


কোয়ারেন্টিন ইস্যুতে অনড় অবস্থানের কারণে অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে টাইগারদের শ্রীলঙ্কা সিরিজ। লঙ্কান ক্রিকেট বোর্ডের শর্ত মেনে টেস্ট সিরিজ খেলা সম্ভব নয়, জানিয়েছেন বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন।

গতরাতে ই-মেইলে বিসিবির কাছে পরিকল্পনা পাঠিয়েছিল শ্রীলঙ্কা বোর্ড। যেখানে বিসিবিও চাওয়া মানা হয়নি। কোয়ারেন্টিন, ম্যাচ ও প্র্যাকটিসের সুযোগ সুবিধাসহ নানা ইস্যুতে দুই বোর্ডের মতামতের ভিন্নতায় সফর নিয়ে শঙ্কা তৈরি হয়। তারই প্রেক্ষিতে জরুরি সভায় বসে বিসিবি।

পরিচলাকদের সঙ্গে আলোচনা শেষে বিসিবি সভাপতি বলেন, শ্রীলঙ্কার শর্ত মেনে টেস্ট সিরিজ খেলা সম্ভব নয়। আর সে কথা শ্রীলঙ্কা বোর্ডকে জানিয়ে দেয়া হয়েছে।
ময়মনসিংহ, ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুর্নীতির অভিযোগ

ময়মনসিংহ, ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে দুর্নীতির অভিযোগ

 উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ সহ আরও ৫ জনের বিরুদ্ধে স্বাস্থখাতে ব্যাপক বড় দুর্নীতির অভিযোগ। 


ভালুকা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা কালে বিভিন্ন খাতে সর্বমোট ৩ কোটি টাকার অধিক বরাদ্দ আসে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পঃ পঃ কর্মকর্তা ডা. সোহেলী শারমিনের কাছে বরাদ্দকৃত ৩ কোটি টাকার হিসাব চাওয়া হলে তিনি ১.৫০ কোটি (দেড় কোটি) টাকার কোন হিসাব দিতে পারেনি।


এবিষয়ে সোহেলী শারমিনের দুর্নীতির আবাস পাওয়ায় উক্ত বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত করার জন্য মাননীয় সংসদ সদস্য কাজিম উদ্দিন ধনু সাহেব ৫ সদস্য বিশিষ্ট একটি তদন্ত কমিটি করে দেন।


পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট কমিটি উপজেলা চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, সাবেক ইউএনও মাসুদ কামাল, ডাঃ মোস্তাক আহমেদ, স্বাস্থ্য সহকারী আঃ মোত্তালেব ও সাংবাদিক শাহজাহান সেলিম এই ৫ জনকে নিয়ে গঠন করা হয়।


এমপি মহোদয় তদন্ত কমিটি গঠন করে ১ মাসের মধ্যে মানে ২৫ জুলাই ২০২০ তারিখের মধ্যে তদন্ত রিপোর্ট জমা দিতে বলেন। ১ মাসের স্থলে এখন ৩ মাস অতিবাহিত হচ্ছে কিন্তু কোন তদন্ত রিপোর্ট জমা হয়নি।  তদন্ত রিপোর্টত দূরের কথা রেজুলেশন পর্যন্ত করা হয়নি। 


নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্বাস্থ্য কমিটির একজন সদস্য বলেন সম্ভবত সোহেলী শারমিনের সাথে তদন্ত কমিটির সদস্যরা একটা দফারফা করে ফেলেছে মানে দেড় কোটি ভাগবাটোয়ারা করে বিষয়টি দামাচাপা দিয়ে দিছে। তাই হয়ত তারা কোন তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়নি এবং রেজুলেশনও করেননি। 


তদন্ত কমিটি কেন তদন্ত রিপোর্ট জমা দেয়নি কেন তারা কোন রেজুলেশন পর্যন্ত করেননি তাদের বিরুদ্ধে আনিত অভিযোগ সত্য কিনা বিষয়টি উদ্ঘাটন করতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি বিষয়টি সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নেওয়া হউক।

Sunday, 13 September 2020

কারা কারা ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ভ্রমণ অনুমতি পাবেন, বিস্তারিত জেনে নিন।

কারা কারা ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ভ্রমণ অনুমতি পাবেন, বিস্তারিত জেনে নিন।

 ১৫ সেপ্টেম্বর (মঙ্গলবার) থেকে প্রথম দফায় সৌদি আরবে আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করা হচ্ছে!


 সৌদি আরবের অভ্যন্তরীন মন্ত্রণালয় এক টুইটে আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে প্রথম দফায় আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করার ব্যাপারে, এবং আগামী ১ জানুয়ারি, ২০২১ থেকে সকল আন্তর্জাতিক ভ্রমণ এর উপর থেকে সকল প্রকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হবে বলে ঘোষণা দিয়েছে।

আগামী ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে নির্দিষ্ট কিছু যাত্রী গ্রুপের জন্য প্রথম দফায় আন্তর্জাতিক ফ্লাইট চালু করতে যাচ্ছে সৌদি আরব। এছাড়াও আগামী ১ জানুয়ারি, ২০২১ থেকে আন্তর্জাতিক ভ্রমনে সকল প্রকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হবে। মন্ত্রণালয় জানায়, তারা আগামী ডিসেম্বর, ২০২০ পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতি যাচাই করবে, এবং আগামী ১ জানুয়ারি, ২০২১ থেকে সকলের জন্য সৌদি আরবের আন্তর্জাতিক ভ্রমনের উপর থেকে সকল প্রকার নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয়া হবে।