Tuesday, 19 May 2020

মালয়েশিয়া কাঁচাবাজারে বিদেশী নয় চাকরী হবে মালয়েশিয়ানদের।



কাঁচাবাজারে বিদেশি নয়, চাকরি হবে মালয়েশিয়ানদের।

মালয়েশিয়ার সবজি বাজারে বিদেশিকর্মী নয়, চাকরি দেয়া হবে স্থানীয়দের। এমন উদ্যোগ নিয়েছে দেশটির সরকার। সরকারের এ সিদ্ধান্তকে স্থানীয় অনেকে স্বাগত জানিয়েছেন। পাশাপাশি বাজারে বহু বিদেশি কর্মীর উপস্থিতি সম্পর্কেও তারা ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। আবার কেউ কেউ সরকারের এ সিদ্ধান্তের কড়া সমালোচনা করে বলছেন, বিদেশি শ্রমিকদের বাদ দিয়ে স্থানীয় শ্রমিক নিয়োগ করা হলে পুরো বাজার ব্যবস্থায় এক বিপর্যয় পরিবেশের সৃষ্টি হবে।

সংশ্লিষ্ট একটি সূত্রে জানা গেছে, দেশটিতে বৈধভাবে ২.২ মিলিয়ন-এর সাথে আরও আনুমানিক ৩ মিলিয়ন অবৈধকর্মী কাজ করছে। মহামারি করোনাভাইরাস রোধে গত দু’মাসে অনেকে চাকরি হারিয়েছে।

jagonews24

তিনি বলেন, বাজার যেহেতু কখনও কখনও জীবাণুমুক্ত করার জন্য বন্ধ করে দেয়া হয়, তাই আমরা মাসে প্রায় ১২ দিন কাজ করি। কিছু (স্থানীয়) শ্রমিক প্রতিদিন একশ রিঙ্গিত, যা মাসে ১২শ রিঙ্গিত পর্যন্ত আসে। এ বেতনে স্থানীয়রা কাজ করতে অনিচ্ছুক।

বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়ে উঠতে প্রায় ছয় মাস সময় লাগবে, যখন প্রতিদিন বাজার আবার খোলা হবে। তবে এখন ফলমূল, শাকসবজি এবং সি-ফুড বিক্রির জন্য প্রায় ৩০ শতাংশ ব্যবসায়ী এখন ব্যবসার জন্য উন্মুক্ত।

কুয়ালালামপুর ফলমূল পাইকার সমিতির সভাপতি এনএম চিন বলেছেন, এমসিও বর্ধিত হওয়ার কারণে স্থানীয়রা সেখানে কাজ করতে ভয় পাচ্ছিল। তিনি বলেন, বাজারে ব্যবসা খুব ধীর এবং বেশিরভাগ সময় আমাদের গ্রাহকদের জন্য অপেক্ষা করতে হয়।

jagonews24

কুয়ালালামপুর হোই সিওং ফিশ পাইকার সমিতি, বাজারে বিদেশিকর্মীদের বৈধতায় একটি উপযুক্ত চ্যানেল তৈরি করার জন্য সরকারকে অনুরোধ করছে।

সমিতির চেয়ারম্যান সিং কিয়ান হক বলেছেন, তার মতো ব্যবসায়ীরা বিদেশি শ্রমিকদের কাজের পারমিট পাওয়া মুশকিল। তবে, বিদেশিকর্মীদের উপর নির্ভরতা অনিবার্য কারণ তারা কাজ করতে আরও আগ্রহী। আমরা দু’বছর আগে বিভিন্ন বিভাগে এই সমস্যাগুলি তুলে ধরেছি।

সিং বলেছেন, বিদেশি শ্রমিকদের পরিচালনা করার একমাত্র উপায় ছিল বৈধ করার জন্য একটি সিস্টেম তৈরি করা এবং বাজারে তাদের সংখ্যার সীমা নির্ধারণ করা। তবে বাজারে দেশি এবং বিদেশিকর্মীদের একটি সহাবস্থান থাকা উচিত বলে মনে করছেন সিং।


শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: