Thursday, 11 June 2020

সেনাবাহিনীর নজরধারিতে মালয়েশিয়ায় বসবাসকারী জনগণ।


প্রতিরক্ষা বাহিনী প্রধান জেনারেল টান শ্রী আফেন্দি বুয়াং, রিকভারি মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (RMCO) এর অধীনে সরকার কর্তৃক বেধে দেয়া স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (SOP) অনুসরণ করা হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করার জন্য জনসমাজে আরও নজরদারি জোরদার করা হয়েছে।

তিনি বলেন, যেহেতু এখন আর কোনও সড়ক অবরোধ নেই সুতরাং মালয়েশিয়ার সশস্ত্র বাহিনী (এটিএম) এর কর্মীরা
এখন থেকে দেশের জনগন সরকারের দেয়া বিধিনিষেধ গুলো মান্য করছে কিনা, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রদত্ত স্বাস্থ্য নির্দেশিকা গুলো পালন করছে কিনা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে সামাজিক এলাকাগুলোতে টহল দেয়ার জন্য মোতায়েন করা হচ্ছে। স্বাস্থ্য বিধি গুলো ভালো করে অনুসরণ করা হচ্ছে কিনা তা নিশ্চিত করতে উন্মুক্ত বাজারগুলো এবং রাতের বাজার গুলোতে টহলরত থাকবে সেনা সদস্যরা।

জনসাধারণের মাঝে কোন ধরনের অনিয়ম বা রিকভারি মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার অমান্য করলে গ্রেফতারসহ জরিমানার বিধান রয়েছে।
জাতীয় সংক্রমণ ও রোগ প্রতিরোধ আইন ২০২০ অনুযায়ী সর্বোচ্চ ১ হাজার রিঙ্গিত বা ছয় মাসের জেল অথবা উভয় দন্ডে দন্ডিত হওয়ার বিধান রয়েছে এই আইনে। অর্থাৎ বর্তমানে বাইরে বের হলেও সাবধানতার সহিত চলাফেরা এবং সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পাশাপাশি সকল স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে হবে।

কোভিড-১৯ এর সংক্রমণ ঠেকাতে সরকার প্রদত্ত নির্দেশিকা গুলো কঠোরভাবে অনুসরণ করা প্রয়োজন। মালয়েশিয়ার বার্তা সংস্থা বারনামাকে দেয়া এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, রয়্যাল মালয়েশিয়া পুলিশ (পিডিআরএম) এর সাথে যৌথভাবে টহল দেয়ার পাশাপাশি অতি ঝুঁকিপূর্ন এলাকা বা রেডজোন ঘোষণাকৃত এলাকায় নজরদারি করার জন্য দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সেনাবাহিনী সদস্যদের।

এরই মধ্যে, তিনি বলেছিলেন যে, Ops Benteng নামক অভিযানে পুলিশের সাথে সেনাবাহিনীর সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছে। অভিযান গুলো আরও তীব্র করা হয়েছে এবং অবৈধ অভিবাসীদের মালয়েশিয়া নিয়ে আসার সাথে জড়িত নৌকাচালক এবং সিন্ডিকেট সদস্যদের খুজে বের করতে অভিযান ও তদন্ত চালানো হচ্ছে।

মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী তানশ্রী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন এর ঘোষণা অনুযায়ী শর্তসাপেক্ষে মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার এর পরিবর্তে রিকভারি মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার ঘোষণা করার পর মালয়েশিয়ার রোডব্লক গুলি তুলে নেয়া হয়েছে। গতকাল থেকে নতুন নিয়মে দায়িত্ব অয়ালন করছে পুলিশ, সেনাবাহিনী সহ অন্যান্য সংস্থার সদস্যরা।



সুত্র:কপি

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: