Sunday, 7 June 2020

পাবনার এক পরিবারের ৩ জন খুন হলেন পালিত ছেলের হাতে।



নিঃসন্তান ছিলেন অবসরপ্রাপ্ত ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল জব্বার ও তার স্ত্রী ছুম্মা খাতুন। দত্তক নিয়েছিলেন একদিন বয়সী কন্যা শিশু সানজিদাকে। দেড় বছর আগে বাসার পাশের মসজিদের ইমাম তানভীরকে ছেলে সন্তান হিসেবে আপন করে নেন ওই দম্পতি। আর সেই সন্তানের হাতেই শেষমেষ তারা খুন হলেন

পাবনার দিলালপুর মহল্লায় ভাড়া বাসায় একই পরিবারের তিনজন খুন হওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন ও হত্যায় জড়িতকে আটক করেছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী। হত্যয় জড়িত ছিল নিহত আব্দুল জব্বারের পালিত ছেলে মসজিদের ইমাম তানভীর হোসেন (২৫)। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। 
তানভীর নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার হরিপুর গ্রামের মৃত হাতেম আলীর ছেলে। মুলত টাকা পয়সা ও স্বর্ণালঙ্কারের লোভে নিঃসন্তান দম্পতি ও তাদের পালিত মেয়েকে নৃশংসভাবে হত্যা করে তানভীর।

পুলিশ সুপার শেখ রফিকুল ইসলাম রবিবার দুপুরে পাবনা পুলিশ লাইন মিলনায়তনে এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব তথ্য জানান।

তিনি জানান, বছর দেড়েক আগে বাসার পাশে ফায়ার সার্ভিস মসজিদের ইমাম তানভীরের ব্যবহারে সন্তুষ্ট হয়ে তাকেও ছেলে সন্তান হিসেবে আপন করে নেন। তানভীরও তাদের বাবা-মা হিসেবে ডাকতে থাকেন। আব্দুল জব্বার ব্যাংক, পোস্ট অফিসে টাকা লেনদেনেও তানভীরকে সঙ্গে নিয়ে যেতেন ।

এখান থেকেই তানভীরের লোভাতুর দৃষ্টি পড়ে পাতানো পিতা জব্বারের টাকা পয়সা ও স্বর্নালঙ্কারের দিকে। হত্যাকান্ডের পরিকল্পনা করতে থাকে। গত ২৯ মে কদিনের ছুটি নিয়ে হরিপুর গ্রামের বাড়ি চলে যায় তানভীর। ছুটি শেষ হওয়ার আগেই ৩১ মে পাবনা ফিরে আসে সে। ওইদিন রাতে ব্যাংক কর্মকর্তা আব্দুল জব্বারের বাড়িতে অবস্থান নেয় তানভীর।

 রাত ২টার দিকে ঘুমন্ত অবস্থায় আব্দুল জব্বার, তার স্ত্রী ছুম্মা খাতুন ও মেয়ে সানজিদাকে (১২) কুপিয়ে ও কাঠের বাটাম দিয়ে পিটিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে। তারপর বাথরুমে গিয়ে রক্তমাখা কাপড়-চোপড় ধুয়ে গোসল করে বাসায় তালা দিয়ে নগদ ২ লাখ টাকা, এক লাখ ভারতীয় রুপি ও স্বর্ণের গহনা নিয়ে ফজরের আজানের সময় নির্বিঘ্নে সটকে পড়ে।

গত শুক্রবার (০৫ জুন) দুপুরে ওই বাড়ি থেকে তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। আর ঘটনার রহস্য উদঘাটনে মাঠে নামে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাসের নেতৃত্বে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর একাধিক টিম। পরে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা শনিবার (৬ জুন) রাতে নওগাঁর নিজ বাড়ি থেকে তানভীরকে গ্রেপ্তার করে। নৃশংস হত্যাকান্ডে জড়িত তানভীরের শাস্তি নিশ্চিতে সব ধরনের আইনগত প্রক্রিয়া গ্রহণ করা হবে বলে জানান পুলিশ সুপার।

প্রেস ব্রিফিংয়ে অন্যদের মধ্যে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার গৌতম কুমার বিশ্বাস, শামীমা আক্তার, সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইবনে মিজান, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর) খন্দকার রবিউল আরাফাত লেলিন, সদর থানার ওসি নাছিম আহম্মেদ, ডিবি পুলিশের ওসি ফরিদ হোসেন উপস্থিত ছিলেন।



শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: