Friday, 12 June 2020

গার্মেন্টস কর্মীকে হত্যা করে ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার

ঘাতক রাজাবালি

ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার বাকতা শ্রীপুর টানপাড়া গ্রামে গার্মেন্টস কর্মীকে হত্যা করে
লাশ কচুখেতে ফেলে পালিয়ে এই সেই ঘাতক রাজাবালি। ঘাতক রাজাবালির বাড়ি শ্রীপুর গ্রামে। তাঁর পিতার নাম নেকবর আলী। তিন সন্তানের জনক।
গত বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে ঘাতক রাজাবালিকে শ্রীপুর নিজ বাড়ি থেকে গ্রেফতার করে ময়মনসিংহ গোয়েন্দা পুলিশ। পুলিশের জিঙ্গাসাবাদে হত্যাকান্ডের কথা স্বীকার করেছে এবং আদালতে জবানবন্দি দিয়েছে।

রাজাবলি গত ৬ মাস আগে মোবাইলের মিসকলের সূত্র ধরে পরিচয় হয় গার্মেন্টস কর্মী লাভনী আক্তারের সাথে। তাঁর বাড়ি কালিহাতী উপজেলার এলেঙ্গা পৌরসভার হিন্নাইপাড়া গ্রামে। মেয়েটির পিতার নাম মজিবুর রহমান। মোবাইলে তাদের সাথে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। এর আগেও একবার ফুলবাড়িয়া নিয়ে আসে।
গত মঙ্গলবার বিয়ের প্রলোভনে মেয়েটিকে আবারও ফুলবাড়িয়া নিয়ে আসে। ঐ রাতেই দৈহিক মেলামেশা (ধর্ষণ) করে। এরপর মেয়েটি বিয়ের জন্য চাপ সৃষ্টি করে। এক পর্যায়ে রাজাবালি পিছন দিক থেকে গামছা দিয়ে মেয়েটিকে শ্বাসরুদ্ধকরে হত্যা করে কচুক্ষেতে লাশ ফেলে রেখে চলে যায়।
জানাযায়, প্রায় দশ বছর আগে লাভনীর বিয়ে হয় টাংগাইল সদরের লাল মিয়ার সাথে। সেখানে এক সন্তান হয়।গত দুই বছর যাবৎ স্বামী সাথে পারিবারিক দ্বন্ধ সৃষ্টি হলে গাজীপুর কোনাবাড়ি ভাড়া বাসায় থেকে সুয়েটার কোম্পানিতে চাকুরি করে।

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: