Tuesday, 9 June 2020

প্রতিবেশির শিশুসন্তানকে হত্যা করে বাড়ির মালিককে ফাঁসানোর চেষ্টা।


👉🗣চট্টগ্রাম নগরীতে এক শিশুকে খুনের ঘটনায় প্রতিবেশি নারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পুলিশ জানিয়েছে, প্রতিবেশির শিশুসন্তানকে হত্যা করে বাড়ির মালিককে ফাঁসানোর চেষ্টা করেছিলেন ওই নারী।

👉মঙ্গলবার (৯ জুন) নগরীর কোতয়ালী থানার মনোহরখালী এলাকা থেকে নাজমা বেগম (৪০) নামে ওই নারীকে গ্রেফতার করা হয় বলে জানিয়েছেন সিএমপির অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (এডিসি-দক্ষিণ) শাহ মো. আব্দুর রউফ।👇

👉নগরীর বাকলিয়া মিয়াখান নগর এলাকায় দুই বছর বয়সী শিশুপুত্র আরাফকে হত্যার মামলায় ওই নারী আদালতে জবানবন্দিও দিয়েছেন। নাজমা ওই এলাকার হাজী মনসুর আলী রোডের তাজুল ইসলামের স্ত্রী।👇

🗣এডিসি রউফ জানান, গত রোববার সন্ধ্যায় মিয়াখান নগর হাজী মনুসর আলী রোডের নুরুল আলম মিয়ার মালিকানাধীন ভবনের ট্যাংক থেকে আরাফের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। আরাফ ওই ভবনের বাসিন্দা অপসোনিন ফার্মাসিউটিক্যালসের বিক্রয় প্রতিনিধি আবদুল কাইয়ুমের ছেলে।👇

👉🗣তিনি আরো বলেন, রোববার বিকেলে ওই ভবনের নিচতলায় খেলতে গিয়ে শিশু আরাফ নিখোঁজ হয় এবং পরবর্তীতে তার মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনা তদন্ত করতে গিয়ে পুলিশ নাজমা বেগমের সম্পৃক্ততা পায়। পরে তাকে গ্রেফতার করা হয়।👇

👉🗣নাজমাকে জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নেজাম উদ্দিন জানান, গত দুই বছর ধরে নাজমা ওই বাসায় পরিবারসহ ভাড়া থাকেন। সেখানে তার স্বামী, তিন মেয়ে ও দুই ছেলে রয়েছে।👇

👉স্বামীর অসুস্থতার জন্য নাজমা বিভিন্নজনের কাছ থেকে সুদে টাকা ঋণ নেন। সেই টাকা তিনি শোধ করতে পারছিলেন না।👇

👉তার এক ছেলে হাসানকে বাড়িয়ওয়ালা নুরুল হক তাদের ভবনের দারোয়ান হিসেবেও নিয়োগ দেন। নাজমা বাসা ভাড়া দিতে না পারায় কয়েকমাস ধরে বাড়ির মালিক তার বেতন বন্ধ করে দিয়েছেন।👇

👉🗣ওসি নেজাম বলেন, বাড়ির মালিক নুরুল হকের সঙ্গে পাশের ভবনের ভাড়াটিয়া মো. ফরিদের শত্রুতা আছে। এর জেরে ফরিদ নাজমাকে বাড়িওয়ালা নুরুল হককে ফাঁসানোর জন্য প্ররোচণা দেয়। বিনিময়ে তাকে ২০ হাজার টাকা দেওয়ার প্রস্তাবও দেওয়া হয়। নাজমা গত রোববার বিকেলে ভবনের পার্কিং এলাকায় খেলতে থাকা নিচতলার ভাড়াটিয়ার দুই বছরের শিশুপুত্র আরাফকে আদর করার ছলে কোলে নিয়ে ছাদে উঠে যায় এবং পানির টাংকির ভেতর ফেলে দেয়।😭😭




শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: