Monday, 8 June 2020

আনারস নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ কিছু কথা বললেন ডা:মো:ইসতিয়াখ আহম্মেদ




✍👉🗣আজকের বিষয় আনারস🍍🍍🍍🍍 আনারাস খুবই জনপ্রিয় ভিটামিন সি জাতীয় পচনশীল রসালো ফল, আনারস মৌসুমী ফল, তবে প্রায় সারা বছরই কিছু সংখ্যক আনারস পাওয়া যেগুলো মৌসুমের থেকে অনেক নিম্নমানের প্রচুর টক,
আনারস পরিচিতঃ আনারসের আদি নিবাস ছিল সূদুর ব্রাজিলে, তারপর আসে ভারতে অতঃপর বাংলাদেশে তারপর সিংগাপুরে আসে, আনারস চাষের একমাত্র জেলা টাংগাইল, বাংলাদেশের আনারস চাষের একমাত্র জেলা টাংগাইল, আনারস টাংগাইল জেলার মধুপুর উপজেলায় প্রচুর পরিমানে চাষ হয়।

মধুপুর উপজেলায় পাহাড়ী অঞ্চলে ৮০% জমিতে আনারস চাষ হয়ে থাকে, এবং ২০% আনারস চাষের জমি মধুপুরের পার্শবর্তী ঘাটাইল উপজেলার পাহাড়ী জমিতে চাষ হয়ে থাকে।আনারস পাকার উপযুক্ত সময় হলো আষাঢ় এবং শ্রাবন মাসে, কিছু অসাদু কৃষক এবং ব্যবসায়ী অপরিপক্ক আনারসে মেডিসিন ব্যবহার করে পাকিয়ে বাজার জাত করে, সেগুলো খেতে তেমন মজা লাগেনা, অস্বাদ লাগে, আষাঢ়ে

পুরনো বাগানের আনারস এবং শ্রাবন মাসে নতুন বাগানের আনারস পেকে যায় সেগুলো খেতে খুব সুস্বাদু হয়। সত্যি কথা বলতে বর্তমানে আনারস আগের মতো তেমন একটা সুস্বাদু হয়না,তার কারন হলো আনারস আকারে বড় করার জন্য কৃষকগন বিভিন্ন মেডিসিন ও কেমিক্যাল ব্যবহার করে থাকে,

তবে ছোট আকারের আনারস তুলনামূলক ভাবে খুব ভাল। ভাল আনারস চেনার উপায়ঃ আমরা সাধানত আনারস কেনার কেনার সময় লাল টুকটুকে আনারস কিনতে পছন্দ করে, কিন্তুু মজার বিষয় হলো লালটুকটুকে আনারস গুলো মেডিসিনে পাকানো।

গাছ পাকা আনারস সাধারনত উপরে দিকে নীল রঙ্গের এবং নিচের দিকে হালকা লাল রঙ্গের, তবে নিচের দিকে অধিক লাল রঙ্গের অানারস হলে বুঝতে হবে এটি দেরীতে সরবরাহ জনিত কারনে বেশী পেকেছে। চট্টগ্রাম গ্রামে বিভাগে

আনারস চাষাবাদঃ চট্টগ্রামে খাগড়াছড়ি, বান্দরবন জেলায় কিছু অংশে আনারস চাষ হয়ে থাকে,তবে এ আনারসটি মধুপুরের আনারস থেকে ভিন্ন যেমন এটি আকারে ছোট, অসংখ্য কাটাযুক্ত, প্রচুর মিষ্টি, এই আনারসটি পাওয়া চৌত্র মাসের শেষের দিকে,এই আনারসটি খুবই স্বল্পকালীন।
এই আনারসটির নাম হলো জলপাই আনারস, কৃষি বিভাগের ভূমিকাঃ সবচেয়ে আশ্চর্যের ও মজার বিষয় হলো কৃষি বিভাগ আনারস চাষাবাদ নিয়ে তারা কিছুই বুঝতে পারেনা😂😂।

🗣একমাত্র কৃষকগনই আনারস চাষে পারদর্শী, তারা নিজেদের মধ্যে পরামর্শ করে আনারস চাষাবাদ করে থাকে।              
  আনারসের উপকারিতা সমূহঃ হজম শক্তি বৃদ্ধি করে, কোষ্টকাঠিন্য দূর করে,পেটফাঁপা দূর করে,মুখের রুচি বৃদ্ধি করে,শরীর ঠান্ডা  রাখে,উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রনে রাখে,উর্ধমুখী বায়ু নিস্বরন করে,গরমকালীন সময়ের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির জন্য আনারস খুবই কার্যকরী ভিটামিন সি জাতীয় পচনশীল রসালো ফল।                                               আনারসের অপকারীতাঃ রক্তশূন্যতা, নিম্ন রক্তচাপ, এবং ধাতু দূর্বলতার রোগীদের আনারস খাওয়া যাবেনা।



শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: