Sunday, 23 August 2020

"লাইকি" বাংলাদেশের যুবকদের অর্থনৈতিক ভাবে ধ্বংস করে দিচ্ছে

লাইকি বাংলাদেশের যুবকদের অর্থনৈতিক ভাবে ধ্বংস করে দিচ্ছে
লাইকি আপস্ সম্পর্কে কিছু কথা।
এটা একটা বিদেশী এ‍্যাপস্ যা বর্তমানে অনলাইন ক‍্যাসিনিও'র সাথে তুলনা করা যায়।আসুন জেনে নেই লাইকি সম্পর্কে এবং সচেতন হই।

এই এ‍্যাপস্ হচ্ছে ব্লু হোয়াইল গেমস্এর মতো যারা লাইকি ইউজ করছেন তারা এখন ফেসবুকের মতো জনপ্রিয় এ‍্যাপস্এর কথা ভুলেই গেছেন।আরও পড়ুন

এই লাইকিতে ভিডিও শোট করলে ১৫ থেকে ৬০ সেকেন্ড মাএ আর ভিডিও আপলোড দিলে সর্বোচ্চ 2 মিনট।
ভিডিও কিভাবে তৈরী করেঃ- অন‍্য শিল্পীর গান নিজের ঠোট মিলিয়ে।অন‍্য অভিনেতার অভিনয় নিজের অঙ্গভঙ্গি মিলিয়ে ভিডিও তৈরী করা হয়।আর অল্প সংখ্যক আছে যারা দামী ক‍্যামেরা ব‍্যবহার করে

নিজের কন্ঠে ডায়লগ দিয়ে মিউজীক ইডিট করে ২ মিনিটের ভিডিও আপলোড করে।
খতিকর দিকঃ-সেই ভিডিও আপলোড করার পর অন‍্য কেউ তাতে লাইক দিক এই জন‍্য অন‍্যের কাছে লাইক চেয়ে বেড়ায়।
প্রয়োজনে লাইক টাকা দিয়ে কিনে নেয় ভিডিও ভাইরাল করার জন‍্য।

কিভাবে লাইক টাকা দিয়ে কিনেঃ-লাইকিতে ডায়মন্ড রিচার্জ করা যায় একটা ডায়মন্ড ২ টাকা।বিকাশে রিচার্জ করা যায় ভিবিন্ন ব‍্যাংক কার্ড ব‍্যবহার করা যায়।আর যারা লাইকিতে এজেন্সি হিসেবে আছে তাদের দাড়া কিছু হোস্টিং এজেন্সি নিযুক্ত করা আছে।সেখানে সরাসরি লাইভে এসে তারা লাইক কেনা বেচা করে।
আপনার ১ হাজার লাইক কিনতে প্রায় ৫০-১০০ ডায়মন্ড খরচ হবে।

কে দিবে লাইকঃ-যারা টাকা খরচ কম করে তারা আপনাকে লাইক দিবে বিনিময়ে আপনার কাছ থেকে ডায়মন্ড নিবে।
কিভাবে নিবে ডায়মন্ডঃ-সেখানে ভাগ‍্য পরিক্ষা নামের একটা বক্স আছে সেই বক্সে করে ডায়মন্ড ছেরে দেয় আর যারা লাইক দেয় তারা ঐ বক্স মোবাইল স্ক‍ীনে দখা মাত্র চাপ দিয়ে ধরে।
এবার আসুন কিভাবে লাইকিতে জুয়া খেলা হয় জেনে নেইঃ-বাংলাদেশে আছে স্টার খেলা।আর অন‍্য দেশে আছে গেডি খেলা।আর পাশাপাশি লেভেল আপের দৌড়াদৌড়ি।

লেভেল আপঃআপনি যত ডায়মন্ড অন‍্যকে গীফ্ট করবেন ততই লেভেল আপ করতে পারবেন।এখানেই যুবকেরা পাগল হয়ে যায়।আর যেভাবেই হোক রিচার্জ করে।

স্টার খেলাঃ এক স্টার সমান ৫ ডায়মন্ড।কোন এক হোস্ট এর লাইভ চলাকালীন সেখানে যুবকেরা গিফ্ট হিসেবে স্টার ছুরে মারে আর নেট ভালো থাকলে 1× /2×/অথবা বিগ উইন 100× ফেরত পেতে পারে।যেহেতু বাজি ধরা মানেই জুয়া খেলা তাই এটা হারাম এবং নিশ্চিত জুয়া খেলা।
গেডি খেলাঃ বিশ্বের যেকোন দেশের বাংলাদেশ বাদে হোস্টিং লাইভ চলাকালে সেখানে একটা চড়কা ঘুরানি দেখতে পাবেন।সেখানে বাজি ধরার ৮ টি বস্তু আছে যেখানে একটা ডায়মন্ড ধরলে ৫× থেকে ৪৫× ফেরত পেতে পারেন।এখন বলুনতো কাসিনিওর ভিতরে কিন্তু একই খেলা চলে তাহলে সেখানে যদি হারাম এবং জুয়া খেলা হয় তাহলে লাইকি এ‍্যাপস্ এর ভিতরে কোন কারনে জুয়া খেলা হয় না?
এটাও কিন্তু জুয়া খেলা আর সেখানে যুবকেরা সব ডায়মন্ড লস করে ফেলে এবং পুনরায় রিচার্জ করে কেউ বাপের টাকায় কেউ নিজের টাকায়।আবার প্রবাসীদের উপরও কিন্তু এটার প্রভাব পরতে শুরু করেছে।
এবার বলি হোস্টিং বোর্ডের মালিকদের বড় আকারের জুয়া হচ্ছে "পি,কে" খলা।
পি,কেঃ এমন একটি v/s বেটল খেলা যা লাইকি অফিস থেকে টাইম,কার সাথে খেলতে হবে এবং কত পরিমান বিনস্ ইনকাম করত হবে তা তারা বলে দেয়।
বিনস্ হচ্ছে কেউ যদি আপনাকে একটা ডায়মন্ড গীফ্ট করে আপনি সেটা সিমের বিচি মানে বিনস্ হিসেবে পাবেন।

আপনার ধরুন ৫k তার্গেট তাহলে আপনাকে কেউ কম করে হলেও ৫k ডায়মন্ড ছুড়ে মারতে হবে।এখন কেউ কি আপনাকে দামি জিনিস এমনিতেই দিবে?আসলে তা না যারা খেলায় তারা একে অপরের সাথে কথা বলে যে আজ তুমি আমাকে দেও কাল আমি তোমাকে দিবো।আসলে সব নিজের খেলায় নিজের টাকায় ডায়মন্ড মারতে হবে।

লস টা হচ্ছে এমন যে আপনি ১০ টা ডায়মন্ড মারলেন সেটা আপনাকে বিনস্ হিসেবে রিসিফ করতে হবে ঐ বিনস্ যদি আপনি ডায়মন্ড করতে চান তাহলে প্রতি ১০ টা বিনস্ একচেন্জ করে ৩টা ডায়মন্ড পাবেন বাকি ৭ টা লাইকি কম্পানি খেয়ে ফেললো এটাই তাদের লাভ।

বিনিময়ে ঐ হোস্টিং পাবে অল্প কিছু বেতন যা অফিসিয়ালি দেয় তাও টাকা না ডায়মন্ড যা আপনি বিক্রি করতে পারবেন।

এখন আপনারাই বলুন এ কেমন এ‍্যাপস্ যা কিনা আমাদের বিনোদনের পাশাপাশি টাকা পয়সা টাকা পয়সা নিয়ে যাচ্ছে টেরই পাচ্ছি না।
এখনই এটা বাংলাদেশ থেকে বন্ধ করতে হবে এবং সরকারকে এ বিষয়ে অবগত করতে হবে।
তাই সবাই আসুন সচেতন হই শেয়ার করে সবাইকে জানিয়ে দেই।
সরকারের কাছে এই বিষয়টা খতিয়ে দেখার অনুরোধ রইলো।

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: