Monday, 17 August 2020

করোনা ভাইরাসের ভ‍্যাকসিন কোথায় থেকে নিবে এখনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

করোনা ভ্যাকসিন কার কাছ থেকে নেয়া হবে, কত টাকা বিনিয়োগ করা হবে সেসব বিষয়ে এখনও কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। তবে স্বাস্থ্য সচিব আব্দুল মান্নান জানালেন, এরই মধ্যে উৎপাদনকারী বিভিন্ন দেশের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু হয়েছে। এক্ষেত্রে তড়িঘড়ি না করার পরামর্শ বিশেষজ্ঞের। বলছেন, আগে পাওয়ার চেয়ে নিরাপদ ভ্যাকসিন পাওয়া বেশি গুরুত্বপূর্ণ।

গত বছরের শেষে চীনে ধরা পড়ে করোনাভাইরাস। এরপর থেকেই চলছে ভ্যাকসিন আবিষ্কারের চেষ্টা। সারা বিশ্বে এ পর্যন্ত ১৬৫টি ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হয়েছে। ৩১টি, মানুষের শরীরে পরীক্ষার বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। এর মধ্যে এগিয়ে আছে ৭টি।

রাশিয়া, চীন, যুক্তরাষ্ট্র ও যুক্তরাজ্য করোনা ভ্যাকসিন উৎপাদনের প্রায় কাছাকাছি পৌঁছেছে। তাদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু করেছে বাংলাদেশ।

এরই মধ্যে করোনা ভ্যাকসিন নিয়ে বাজার দখল করতে শুরু হয়েছে তুমুল প্রতিযোগিতা। বিভিন্ন দেশ ভ্যাকসিন উৎপাদনে বিনিয়োগ করছে বিলিয়ন বিলিয়ন ডলার। তবে বিনামূল্যে ভ্যাকসিন পাবে ৯২ দেশ। সে তালিকায় আছে বাংলাদেশও। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার কাছ থেকে ২০ ভাগ ভ্যাকসিন বিনামূল্যে মিললেও কিনতে হবে বাকিটা।

বছরে ৩শ কোটি ভ্যাকসিন উৎপাদনের সামর্থ্য আছে গোটা বিশ্বের। আরো বাড়াতে চলছে প্রযুক্তিগত সক্ষমতা বাড়ানোর চেষ্টা। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ভ্যাকসিন আগে পাওয়ার চেয়ে নিরাপদ হওয়া বেশি জরুরি।

বাংলাদেশও নাম লিখিয়েছে ভ্যাকসিন ক্লাবে। পরীক্ষার অংশ হিসেবে খরগোসের পর ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে ইঁদুরের শরীরে। এই ধাপগুলো সফল হলে বছরের শেষ দিকে শুরু হবে হিউম্যান ট্রায়াল।

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: