Friday, 21 August 2020

সিঙ্গাপুরের ক‍্যাটারিং এর খাবারের মান উন্নয়নে শ্রমীকদের দাবি


স্বপ্নের দেশ সিঙ্গাপুর অসাধারণ সুন্দর একটি দেশ

এদেশে সবকিছু সুন্দর হলেও অভিবাসীদের একটা দাবি আছে।
সিঙ্গাপুর প্রবাসীদের কাছে এদেশের সবচেয়ে কষ্টের হচ্ছে ক‍্যাটারিং এর খাবার।
ক‍্যাটারিং হচ্ছে রেডি মেইড খাবার।তারা সকালের নাস্তা সহ দুপুরের খাবার দেয় ভোরে ৪ টার সময়।

আর রাতের খাবার দেয় বিকেল ৫ টার সময়।
খাবারের বিবরণ : সকালের নাস্তা হিসেবে দুইটা ছোট এবং পাতলা রুটি দেয় সাথে হালুয়া চিনি ঠিকমত দেয়না।আর ডাউল ভর্তা এতটা শুকনো করে যে মনে হয় ডাউল সিদ্ধ হয় নাই।মাঝে মধ‍্যে সবজি ভাজি দেয়।তাও আবার সব মালিকরা না।এই দুই রুটি খেয়ে টানা ৪ ঘন্টা কাজ করতে হয় প্রখর রোদের মাঝে।অনেকে রুটি খেতে পারেনা তারা আবার দোকান থেকে নাস্তা কিনে খায় বাচার জন‍্য যা অতিরিক্ত টাকা খরচ হয়।

দুপুরের খাবার:ভাত আর তরকারি।তরকারি হচ্ছে সবজি দিবে আর মাছ সবজি এমন দেয় যে কখনো ছোলায় না শুধু কেটে দেয় তারা পচা না ভালো এটাও দেখে না।সাথে আলু যা কিনা কোনদিনও ছোলায় না আর যত নষ্ট আলু আছে সেইগুলো পাবেন ক‍্যাটারিং এর খাবারের মাঝে।মাছের কথা বলি ভালো মাছ দেয় কিনা জানিনা তবে আপনি খতে পারবেন না।কারন এমন ভাবে ভাজি করে যে শক্ত করে ফেলে।

আর ভাঙ্গা ভাঙ্গা মাছ পাবেন কখনো আমান এক পিছ পাবেন কিনা সন্দেহ আছে।আর যেসব মাছ দেয় তাতে কোন স্বাদ আপনি পাবেন না।আর দেয় ডাল ডাউল এমন যে পানিতে কিছু হলুদের গুড়া আর লবন দিয়ে মিক্স করলেই ডাল।অনেকে যেসব সবজি খায়না সেই সবজির তরকারি দিলে শুধু ডাল দিয়েই খায় আর এমন ডাল দিলে তার চোখে পানি আর মুখে কিছু গালি।
তারপরও খেতে হয় কারন কাজ করতে হবে।

এবার রাতের খাবার প্রতিদিন মাংস যা কখনো গরু,খাসি,মুরগী।যারা গরু খায়না তাদের জন‍্য মুরগী যারা খাসী খায় না তাদের জন‍্যও মুরগী।
আর খাসির মাংস তো খাসির না ঐটা পাঠার মাংস যা অনেকে খেতেই পারে না কারন পাঠার গন্দ থাকে।
এবার খরচের হিসাব: একমাসে ১৩০$অথবা ১২০$ যা বাংলাদেশি টাকায় ৮/৯ হাজার টাকা।
এবার বলি পছন্দ না হলেও কেন খেতে হয়: বেশির ভাগ অভীবাসিদের থাকার জায়গায় রান্না করার অনুমতি নেই।আবার যাদের অনুমতি আছে কিন্তু কাজের চাপে রান্না করার সময় পায় না।অনেকে অনেক রাত পর্যন্ত কাজ করে এসে রান্না করে খাবে নাকি ঘোমাবে।এজন‍্য ক‍্যাটারিং এর খাবার খায়।
অনেকের থাকার জায়গায় রান্না করতে পারলেও কম্পানি থেকে রান্না করা নিষেধ।ভিবিন্ন কারনে ঐসব খাবার খেতে হয় যা কিনা মানসম্মত না।

আর যা কিছুই রান্না করে তারা এতো তৈল ব‍্যবহার করে যে অনেকের শারীরিক সমস‍্যা দেখা দেয়।
সিঙ্গাপুরের শ্রমিকরা এতো কষ্ট করে কাজ করে তারপর যদি মানসম্মত খাবার না পায় তাদের কষ্টের কথা বলবে কোথায়।
তাই সিঙ্গাপুর অভীবাসিদের দাবি এদেশের সরকার এবং ক‍্যাটারিং এর মালিকরা যদি একটু ভেবে দেখে তারা মানুষকে কি খাওয়াচ্ছে।তাহলে হয়তো দুমোঠো ভাত খেয়ে আরামে ঘুমাতে পারতো ঐসব খেটে খাওয়া লোক গুলো।

সবশেষে সিঙ্গাপুরের সরকার,স্বাস্থ‍্যমন্ত্রী,খাদ‍্যমন্ত্রী এবং যারা ক‍্যাটারিং এর ব‍্যবসা করে তাদের কাছে অনুরোধ দয়া করে এই বিষয় টা দেখবেন এবং এদেশের অভিবাসীদের পাশে থেকে দেশকে আরও সুন্দর করে তোলবেন।
ধন‍্যবাদ
সিঙ্গাপুর থেকে প্রবাসী কল‍্যাণ গ্রুপের সদস‍্য 

আমি আর/কে

শেয়ার করুন

0 Please Share a Your Opinion.: